- অনলাইন দৈনিক সমবাদ,সত্য সংবাদ প্রকাশে ২৪ঘন্টা,True News publish the 24 hours "Online Daily Samobad"

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Tuesday, April 30, 2019





 ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠির রাজাপুরে অর্থের অভাবে চিকিৎসাসহ মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত রয়েছে অন্ধ সরবানু (৯০) নামে পাঁচ সন্তানের জননী অন্ধ বৃদ্ধা। সরবানু উপজেলার মধ্য বাগড়ি এলাকার মৃত তাহের মল্লিকের স্ত্রী। এক সময় ৩ ছেলে ও ২ মেয়ে নিয়ে ছিল তার সাজানো সংসার। কয়েক বছর পূর্বে বড় ছেলে মৃত্যু বরন করেন। মেয়েরা তাদের নিজ নিজ শ্বশুরবাড়িতে থাকে। এ সময় ছেলেদের অভাবের সংসারের তিনি থাকতেন। ছেলেরা গায়ে খেটে সংসার চালায়। সোমবার (৩০ এপ্রিল) সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, বৃদ্ধা সরবানু তার পুত্রদ্বয়ের (সম্পূর্ন বস বাসের উপযুগী) বসত ঘরের উত্তর পাশে জরাজির্ন খোলা গোয়াল ঘরে প্লাষ্টিকের বস্তা ঝুলিয়ে বেড়া তৈরি করা ঘরে ময়না আবর্জনা ও কিটপতঙ্গে পরিপূর্ন দূর্গন্ধযুক্ত বিছানায় জড়সড় হয়ে অর্ধউলঙ্গ অবস্থায় শুয়ে আছে। তার কাছে গেলে বিছানাসহ ব্যবহৃত কাপড়ের দুর্গন্ধে সেখানে দাঁড়িয়ে থাকা কষ্টকর হয়ে পরে। তার কাছে রাখা একটি পাত্রে পানি, ২টি মরিচ, খানিকটা লবন, ময়লাযুক্ত একটি বাটি। সকালে কি খেয়েছেন জানতে চাইলে তিনি কথাটি লুকিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন এবং অপরকে জিজ্ঞেস করেন আমি সকালে কি খেয়েছিলাম। হয়তো সকাল বেলা তার অনাহারেই কেটেছে। পরে কি খাবেন জানতে চাইলে তিনি বলেন, কয়টা মুড়ি ও একটু গুড় খেতে দাবী করেন। এ সময় বৃদ্ধার দুই পুত্রবধুসহ পরিবারের লোকজন ও প্রতিবেশিরা দূরে দাঁড়িয়ে ছিলেন। তাদের কাছে বৃদ্ধা সরবানু সম্পর্কে জানতে চাইলে তারা জানান, ১০ বছর পূর্বে সরবানু আচার খেয়ে পড়ে পায়ে আঘাত প্রাপ্ত হয়। স্থানীয় ভাবে তার কয়েকটি ব্যাথার ট্যাবলেট দিয়ে চিকিৎসা করা হয়। অর্থের অভাবে তার উন্নত চিকিৎসা করান সম্ভব হয়নি বলে পরিবারের লোকজন দাবী করেন। এরপর থেকেই তার বিছানার সাথে বন্ধুত মলমুত্র সব বিছানায় বসেই ত্যাগ করতে হয়। এক পর্যায় তার পরিবার বাধ্য হয়ে তাকে ঘরের বাহিবে একটি জরাজির্ন পরিত্যাক্ত বেড়াহীন একটি ছোট ঘরে তাকে ঠাই করে দেয়। প্রায় ৩ বছর যাবৎ ঐ জরাজির্ন ছোট ঘরে তিনি রাত-দিন অনাহারে-অর্ধহারে বিনা চিকিৎসায় বিছানায় পরে আছেন। প্রতিবেশি আকলিমা বেগম, আকলিমা আক্তার সেলিমা বেগম জানায়, বাহিরের জরাজির্ন এই ঘরটিতে অন্ধ বৃদ্ধা সরবানু কয়েক বছর যাবৎ একই ভাবে পরে আছেন। অসুস্থ্যসরবানু বেশি কথার অভিযোগে বসত ঘরের বাহিরে রাখা হয়েছে প্রতিবেশীরা জানায়।

No comments:

Post Bottom Ad

Pages