রাজাপুরে শিক্ষার্থী বিহীন বিদ্যালয়! মাসে লক্ষাধিক টাকা আত্মসাত - অনলাইন দৈনিক সমবাদ,সত্য সংবাদ প্রকাশে ২৪ঘন্টা,True News publish the 24 hours "Online Daily Samobad"

শিরোনাম

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Saturday, December 08, 2018

রাজাপুরে শিক্ষার্থী বিহীন বিদ্যালয়! মাসে লক্ষাধিক টাকা আত্মসাত

ঝালকাঠি প্রতিনিধিঃ ঝালকাঠির রাজাপুরের মঠবাড়ি ইউনিয়নের পশ্চিম বাদুরতলা নি¤œ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিরুদ্ধে ব্যাপক দুর্নীতি ও অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। শিক্ষা অফিস সূত্রে জানাগেছে, ১৯৮৬ সালে বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৯৯৫ সালে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানটি এমপিও ভুক্ত হয়। অভিযোগ রয়েছে, ৬ জন শিক্ষক ও ২জন কর্মচারী মোট ৮ জনের ১লক্ষ ২৫ হাজার টাকা বেতন ভাতা তুলে শিক্ষকরা ভাগ-বাটোয়ার করে খাচ্ছে।  স্কুলে কোন শিক্ষার্থী উপস্থিত না থাকলেও তাদের হাজিরা খাতায় নিয়মিত উপস্থিত দেখানো হচ্ছে। এছাড়া ৬ জন শিক্ষকের মধ্যে ২/১ জন শিক্ষক ছাড়া অন্যরা সকলেই অনুপস্থিত থেকে অফিসের কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে প্রতিমাসে বেতন ভাতা উত্তোলন করে অফিস কর্মকর্তা ও শিক্ষকরা ভাগ-বাটোয়ারা করে নিচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। সরেজমিনে বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) ঐ বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখাগেছে, উপজেলার সকল বিদ্যালয় গুলোর ন্যায় ঐ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষা থাকলেও কোনো শিক্ষার্থীর অস্তিতব্ধ খুঁজে পাওয়া যায়নি। অফিসরুম খোলা থাকলেও উপস্থিত শিক্ষদের হিসেব অনুযায়ী ৫জন শিক্ষকের তিনজন শিক্ষক উপস্থিত পাওয়া যায়। পরে খবর পেয়ে অফিস সহকারি এসে উপস্থিত হয়। এ সময় উপস্থিত শিক্ষদের সাথে পরীক্ষার বিষয়ে আলাপ করলে তরা জানায়,শিক্ষা অফিসের নির্দেশ অনুযায়ী ২৮ নভেম্বর শুরু করে ১০ ডিসেম্বর মধ্যে বার্ষিক পরীক্ষা সম্পন্ন করার কথা থাকলেও ঐ বিদ্যালয়ে ২৪ নভেম্বর পরীক্ষা শুরু  করে ৪ ডিসেম্বর শেষ করেছেন বলে তারা দাবী করেন। তবে বিদ্যালয়টিতে  বার্ষিক পরীক্ষা  অনুষ্ঠিত হয়েছে এর পক্ষে কোন প্রমান উপস্থাপন করতে পারেনি উপস্থিত শিক্ষকরা। বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীর সংখ্যা জানতে চাইলে তারা জানায়, বিদ্যালয়ে মোট ১৫০ জন শিক্ষার্থী রয়েছে তবে এ সময় তাদের বিদ্যালয়ের একজন শিক্ষার্থীর নাম জানতে চাইলে উপস্থিত শিক্ষরা কেউ বলতে পারেনি। এসময় উপস্থিত অফিস সহকারি মোসাঃ নার্গিস বেগম জানায়, তাদের বিদ্যালয়ের সব ছাত্র-ছাত্রী ঝালকাঠি (২৩ কিলোমিটার দুরত্ত) থেকে নিয়মিত বিদ্যালয়ে ক্লাশে উপস্থিত হয়ে থাকেন।
অফিস সংলগ্ন অসম্পূর্ন (দরজা-জানালা বিহীন)৩টি টিনের শ্রেনী কক্ষে গিয়ে দেখা যায় কক্ষ গুলোতে বহুদিন কোনো প্রানীর পা পরেনি। বুনো ঘাস জন্মানো কক্ষগুলোর মধ্যে প্রথমটিতে রয়েছে ধুলো মাখা ২টি চেয়ার, ৪টি বেঞ্চ একটি ব্লাকবোর্ড যা চেয়ারের উপরে রাখা। দ্বিতীয়টিতে রয়েছে ১টি ভাঙ্গা বেঞ্চসহ ধুলোমাখা ২টি বেঞ্চ ও ১টি চেয়ার। তৃতীয়টিতে রয়েছে ধুলোমাখা ৩টি বেঞ্চ। স্থানীয় বাসিন্ধাদের সাথে আলাপ করলে তারা জানায়, বিদ্যালয়টিতে কক্ষনই কোন ছাত্র-ছাত্রী ছিল না তবে প্রতি বছর ঝালকাঠি থেকে উপর ক্লাশের কিছু শিক্ষার্থী ভাড়া করে ৮ম শ্রেণীর পরীক্ষায় অংশগ্রহন দেখানো হয়। ঐবিদ্যালয় থেকে এসে রাজাপুর উপজেলা পরিষদ চত্বরে এলে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আক্তারুজ্জামান বাচ্চরু সাথে দেখা হয় এ সময় বিদ্যালয়ের বার্ষিক পরীক্ষার ব্যাপারে জানতে চাইলে তিনি কথা বলতে অনিহা প্রকাশ করে জানান, বিদ্যালয়ের যে কোন ব্যাপারে বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও সহকারি শিক্ষক আবুবকর সিদ্দিকর সাথে কথা বলতে হবে। তবে বিদ্যালয়ে উপস্থিত শিক্ষকরা ৪ তারিখ পরীক্ষা শেষ হয়েছে বললেও তার দাবী ৫ তারিখে। এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আবুল বাসার তালুকদার জানান, বিদ্যালটি পরিদর্শন করে দুর্নীতির ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফরোজা বেগম পারুল জানান, পূর্বেও অনেক বার বিদ্যালয়টির দুর্নীতির অভিযোগ পেয়েছি নতুন করে আবার পেলাম। বিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট সকলের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। ইতিমধ্যে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ আবুল বাসার তালুকদারকে বিদ্যালয়ের দুর্নীতির ব্যাপারে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

Post a Comment

Post Bottom Ad

Pages