আমার সংবর্ধনার প্রয়োজন নেই,আমি জনগণের জন্য ‍কাজ করতে এসেছি-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা - অনলাইন দৈনিক সমবাদ,সত্য সংবাদ প্রকাশে ২৪ঘন্টা,True News publish the 24 hours "Online Daily Samobad"

শিরোনাম

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Saturday, July 21, 2018

আমার সংবর্ধনার প্রয়োজন নেই,আমি জনগণের জন্য ‍কাজ করতে এসেছি-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

আমার সংবর্ধনার প্রয়োজন নেই
www.samobad.com :: সমবাদ ডট কম ॥ বাংলাদেশের উন্নয়নে অনন্য ও অসাধারণ অবদানের জন্য ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের দেওয়া সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে দলের সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘এ মণিহার আমার নয়, এটা জনগণের। আমার সংবর্ধনার প্রয়োজন নেই। আমি জনগণের জন্য ‍কাজ করতে এসেছি। তাদের জন্য কাজ করছি।’

বাংলার মানুষ যেন অন্ন-বস্ত্র-বাসস্থান পায়, উন্নত জীবন পায় সেটাই তার জীবনের লক্ষ্য জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ লক্ষ্য নিয়েই আমি কাজ করছি। আমার আর কিছুই চাওয়ার নেই।
শনিবার (২১ জুলাই) বিকেলে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আওয়ামী লীগ আয়োজিত গণসংবর্ধনায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।বিকাল সাড়ে তিনটায় গণ সংবর্ধনাস্থলে আসনে তিনি। বাংলাদেশের উন্নয়নশীল দেশের কাতারে উত্তরণ, বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ, অস্ট্রেলিয়া থেকে ‘গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ’ অ্যাওয়ার্ড অর্জন ও ভারতের নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডি-লিট ডিগ্রি প্রাপ্তিতে প্রধানমন্ত্রীকে এই গণ সংবর্ধনার আয়োজন করে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, এই অর্জন আমরা যারা সবাই একযোগে কাজ করেছি, যারা উন্নয়নে অবদান রেখেছে; সবার অর্জন। বাংলার জনগণের অর্জন। দেশের জনগণের কাছ থেকে যদি আমি সাড়া না পেতাম, তাদের সমর্থন যদি না পেতাম, তারা যদি ভোট দিয়ে আমাদের বিজয়ী না করত, তাহলে আমি ক্ষমতায়ও আসতে পারতাম না।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি জনগণের সেবক। জনগণের জন্য কাজ করতে এসেছি। জনগণ কতটুকু পেল সেটাই আমার কাছে বিবেচ্য। এর বাইরে আমার চাওয়া পাওয়ার কিছু নেই।
এর আগে, প্রধানমন্ত্রী দুপুর সাড়ে তিনটার পরে সংবর্ধনাস্থলে আসেন প্রধানমন্ত্রী। এরপর ৩টা ৩৪ মিনিটের দিকে সংবর্ধনা মঞ্চে উঠে আসন গ্রহণ করেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী সংবর্ধনা মঞ্চে উঠলে উপস্থিত নেতাকর্মীরা দাঁড়িয়ে অবিভাদন জানান। বিনিময়ে প্রধানমন্ত্রীও হাত নেড়ে উপস্থিত নেতাকর্মীদের অবিভাদন জানান।
এদিকে ‘স্মরণকালের সবচেয়ে বড়’সংবর্ধনা সফল করতে বেলা ১১টা থেকেই উৎসব আমেজে দলে দলে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে আসতে শুরু করেন নেতাকর্মীরা। দুপুর চারটা ১৯মিনিটের দিকে সংবর্ধণার মূল অনুষ্ঠান শুরু হয়। তার আগে দলের সাংস্কৃতিক উপ-কমিটির পক্ষ থেকে সাংস্কৃতিক পরিবেশনা হয়।
শনিবার (২১ জুলাই) বিকেল সাড়ের ৩টায় রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের সংবর্ধণায় প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দেন প্রধানমন্ত্রী। সংবর্ধণায় প্রধানমন্ত্রী সন্তান এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়-ও এই আয়োজনে উপস্থিত হন।
এর আগে, গত ৭ জুলাই শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা দেওয়ার ঘোষণার কথা জানিয়েছিল আওয়ামী লীগ। তবে গত ১৯ জুন দলের প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ৭ জুলাইয়ের পরিবর্তে ২১ জুলাই বিকেল ৩টায় ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এই গণসংবর্ধনা দেওয়া হবে বলে জানানো হয়।
দীর্ঘ ৩৭ বছর সভাপতির দায়িত্ব পালন করা দেশের প্রাচীনতম দল আওয়ামী লীগের গণসংবর্ধনা শেষে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছেন প্রধানমন্ত্রী। মহাকাশে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের সফল উৎক্ষেপণ, বাংলাদেশের স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ, অস্ট্রেলিয়ায় গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড এবং সর্বশেষ ভারতের কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিলিট ডিগ্রি অর্জন করায় আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে এই সংবর্ধনা দিচ্ছে নিজ দল আওয়ামী লীগ।
আওয়ামী লীগ মনে করে, এসব অর্জন এবং উন্নয়নের একমাত্র অধিনায়ক শেখ হাসিনা। উন্নয়নশীল দেশের যে যাত্রা শুরু হয়েছে- শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বলেই তা সম্ভব হয়েছে। আওয়ামী লীগ সভাপতির এসব কৃতিত্বকে স্মরণীয় করতে এ গণসংবর্ধনার আয়োজন করার সিদ্ধান্ত নেয় দলটি।
Post a Comment

Post Bottom Ad

Pages