শুক্তাগড় মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৩৬ বছরেও পেলোনা উন্নয়নের ছোঁয়া। - অনলাইন দৈনিক সমবাদ,সত্য সংবাদ প্রকাশে ২৪ঘন্টা,True News publish the 24 hours "Online Daily Samobad"

শিরোনাম

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Sunday, September 24, 2017

শুক্তাগড় মাধ্যমিক বিদ্যালয় ৩৬ বছরেও পেলোনা উন্নয়নের ছোঁয়া।




এম খাইরুল ইসলাম পলাশ: ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার শুক্তাগড় মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি একটি ঐতিহ্যবাহী  বিদ্যালয়। এই বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠার ৩৬ বছর অতি শুনামের সাথে পার করলেও অজানা কোন এক করনে উন্নয়নের পরশ পাথরের ছোঁয়া লাগাতে পারেনি।                                                                          বিদ্যালয়টির অবস্থান,যে বিদ্যালয় থেকে এস এস সি পাশ করা ছাত্ররা দেশের বড় বড় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উচ্চতর শিক্ষালাভের পর সরকারী/বেসরকারী পদে অদিষ্টিত রয়েছেন। যে বিদ্যালয়টির একাধীক ছাত্র ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে অধ্যায়নরত রয়েছেন। বিদ্যালয়টি ১৯৮২ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠার ৩৬ বছর পার হলেও আজ অবধী উন্নয়নের ছোঁয়া থেকে বঞ্চিত রয়েছে। প্রতিষ্ঠার পর বার বার সরকার পরিবর্তন হয়েছে অথচ বিদ্যালয়টির কোনো পরিবর্তন হয়নি। সরকারী কোনো কর্মকর্তা কিংবা কোনো এমপি বা মন্ত্রীর নজর পরেনি এই বিদ্যালয়টির অবকাঠামো উন্নয়নে। বিদ্যালয়টির দূর অবস্থা,জোয়ার এলেই বিদ্যালয়টির মাঠ পানিতে তলিয়ে যায়। বৃষ্টি এলেই জড়াজির্ন বিদ্যালয়ের টিনের ঘর থেকে অঝোরে পানি গড়িয়ে পরে ক্লাশরুমসহ অফিস রুমে। এসব দেখার যেনো কেউ নেই। শুক্তাগড় মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি অত্র ইউনিয়নের একটি ভোট কেন্দ্রও বটে।                                                                                          বিদ্যালয়টির পরিক্ষার ফলাফল,  এস এস সি এবং জে এস সি পরীক্ষার ফলাফলও অত্যান্ত ভালো। ২০১২-২০১৬  বিদ্যালয়টির ফলাফল,পর্যন্ত প্রতি বছর এই বিদ্যালয় থেকে এস এস সি পাস করা ছাত্র ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ে অধ্যায়নের সুযোগ পাচ্ছে।
 সর্বশেষ ২০১৬ এসএসসি পরীক্ষায় ২৮ পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২৬ এবং ২০১৭তে ৩১ পরীক্ষার্থীর মধ্যে ২৮ পাস করেছে। প্রায় শতভাগ পাস করেছে বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। 
বর্তমান সরকারের শিক্ষাখাতে সর্বোচ্চ বরাদ্ধ থাকাা প্রতিষ্ঠানটি রয়েছে অবহেলিত।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের মতামত, শুক্তাগড় মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান শিক্ষক মোঃ জিল্লুর রহমানের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিদ্যালয়ের অবকাঠামো উন্নয়নের জন্য কর্তাব্যাক্তিদের কাছে বার বার ধর্ণা দিয়েছি কিন্তু কোনো ফল পাইনি। স্থানীয় সংসদ সদস্য মহোদয়ের মাধ্যমে নামের তালিকা পাঠানো হয়েছে।


Post a Comment

Post Bottom Ad

Pages