রাজাপুরে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির দুর্নীতি ও গ্রাহক হয়রানির অভিযোগ ॥ - অনলাইন দৈনিক সমবাদ,সত্য সংবাদ প্রকাশে ২৪ঘন্টা,True News publish the 24 hours "Online Daily Samobad"

শিরোনাম

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Sunday, July 02, 2017

রাজাপুরে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির দুর্নীতি ও গ্রাহক হয়রানির অভিযোগ ॥



খায়রুল ইসলাম পলাশ: ঝালকাঠির রাজাপুর পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির দুর্নীতিতে অতিষ্ট উপজেলার হাজার হাজার বিদ্যুৎ গ্রাহক। গন গন লোডশেডিং মিটার রিডিং বাড়িয়ে নিয়ে অতিরিক্ত বিল গ্রাহকের কাধে চাপিয়ে দেয়া,কর্মকর্তাদের বিভিন্ন কৌশলে গ্রাহক হয়রানীসহ রয়েছে অগনিত অভিযোগ। কর্তৃপক্ষকে বার বার জানালেও কোন কর্নপাত হচ্ছেনা। তাদের একটি অভিযোগ নাম্বার থাকলেও ওই নম্বারে ফোন দিলে ফোন রিসিভ করেন কেউ। যদিওবা রিসিভ করে বিদ্যুৎ সমস্য আছে বলে ফোনের লাইন কেটে দেয়। এই উপজেলায় সর্বোচ্চ ১০ ঘন্টা বিদ্যুৎ সরবরাহ দেয়া হয়।  এই জেলার সবচেয়ে বড় বিদ্যুৎ সাবষ্টেশন রাজাপুর উপজেলায়। এখানে  গ্রাহক সংখ্যা রয়েছে প্রায় চল্লিশ হাজার। যা ঝালকাঠি পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির গ্রাহক সংখ্যার অর্ধেকেরও বেশী।                                                                                                  দেখা গেছে , সরকারী ভাবে বিদ্যুৎ সিস্টেম লসএর ভাগ সর্বোচ্চ দেয়া হয় ১২.% কিন্তু উপজেলায় সিস্টেম লস হয় ২০ থেকে ২২% প্রতি কিলোওয়াট আওয়ার। আর এর কারন হচ্ছে,অটো রিক্সা ব্যাটারি চালিত রিক্সা যা রাতের আধারে হুকিং করে বিদ্যুৎ ব্যাবহার করা, রাতে বিভিন্ন স্থানে পানির মটর হুকিং এর মাধ্যমে ব্যাবহার করা,গাছ পালা না কেটে বিল উত্তলোন করে ভাগাবাগি করে খাওয়া। আর সিস্টেম লচ পুশিয়ে নেয়ার জন্য ঝালকাঠি পল্লী বিদ্যুৎ বেছে নিয়েছে নতুন কৌশল বারবার রাজাপুর সাবষ্টেশন থেকে বিদ্যুৎ বন্ধ রাখা মিটার রিডিং বাড়িয়ে পুষিয়ে নেয়া। গ্রাহকরা জানান বর্তমানে নতুন সংযোগে মিটার দিচ্ছে ডিজিটাল- যা বিদ্যুৎ ছাড়া মিটার রিডিং দেখা যায় না। সেখানেও তারা বিদ্যুৎ বন্ধ করে অনুমানিক বিল করে গ্রাহকদের ঘাড়ে ঝুলিয়ে দেয়া হয় বাড়তি বোঝা।
পবিত্র রমজান মাস থেকে চলছে প্রতি দিন এক ঘন্টা পর এক ঘন্টা লোডশেডিং। ইদুল ফিতরের পরেও চলছিল প্রতিদিন গভির রাতেও লোডশেডিং তখন সাবষ্টেশনের দায়ীত্বে ছিলেন লাইন ম্যান লোকমান হাকিম। তার কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন ভান্ডারিয়া গ্রীড থেকে লোডশেডিং দিতে বলছে , ভান্ডারিয়া গ্রিডে যোগাযোগ করলে তারা বলেন গভীর রাতে  আমরা  কোন লোডশেডিং দেইনা ওটা রাজাপুরের বিষয়। রাজাপুর পল্লীবিদ্যুৎ সাবষ্টেশনে গিয়ে লোডসেডিং এর রেজিস্টারে লোডশেডিং এর উল্লেখ নেই। লাইনম্যান লোকমান হাকিম বিষয়ে বলেন এটা উর্দ্বোতন কর্মকর্তাদের নির্দেশেই হয়েছে- তাদের হুকুমেই আমাদের কাজ করতে হয়।
ব্যাপারে রাজাপুর সাব জোনাল অফিসের সহকারী জেনারেল ম্যানেজার গবিন্দ্র চন্দ্র শীল জানান রাজাপুর সাবষ্টেশন থেকে সংযোগ মেরামতের জন্য মাঝে মধ্যে বিদ্যুৎ বন্ধ করা হয়। গভীর রাতে কেন বিদ্যুৎ ঘন্টার পর ঘন্টা বন্ধ রাখা হয় বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে। গবিন্দ্র চন্দ্র শীলকে প্রশ্ন করলে তিনি জানান, আমি সাবষ্টেশন ভিজিট করেছি এবং সেদিন সেখানে যার ডিউটি ছিলো তাকে পাওয়া যায়নি। আর লোডশেডিং এর ব্যাপারে রেজিষ্টারে উল্লেখ নেই। লোকমান হাকিমের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে তিনি জানান।







Post a Comment

Post Bottom Ad

Pages