রাজাপুরে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে একাধিক অনিয়মের অভিযোগ। - অনলাইন দৈনিক সমবাদ,সত্য সংবাদ প্রকাশে ২৪ঘন্টা,True News publish the 24 hours "Online Daily Samobad"

শিরোনাম

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Friday, May 12, 2017

রাজাপুরে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে একাধিক অনিয়মের অভিযোগ।

www.samobad.com :: সমবাদ ডট কম ॥

মো:খায়রুল ইসলাম পলাশ,নিজস্ব প্রতিবেদক:  ঝালকাঠির   রাজাপুরের  ৯৯  নং  উঃপূর্বঃকৈবর্তখালি সঃ প্রাঃ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত  প্রধান শিক্ষক মো.রুহুল আমিন এর  বিরুদ্ধে একাধিক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে স্কুল কমিটির সভাপতি মো.সাইদুল ইসলাম ভারপ্রাপ্ত  প্রধান শিক্ষক মো.রুহুল আমিন এর  বিরুদ্ধে লিখিত ভাবে অভিযোগ করেন
স্কুল কমিটির সভাপতি মো.সাইদুল ইসলাম লিখিত অভিযোগে জানান, বেশ কিছুদিন যাবত স্কুলের ভারপ্রাপ্ত  প্রধান শিক্ষক মো.রুহুল আমিন ইচ্ছে মত স্কুল পরিচলনা করেন। তিনি কাউকে কিছু না বলে  রেজুলেশন বহিতে সকল সদস্য সভাপতির সই নিজে দিয়ে থাকেন ,পিটিআই  কমিটি অনুমোদন সভাপতিকে না জানিয়ে নিজে সভাপতির সই দিয়েছেন।বিদ্যালয়ের আসবাবপত্র অন্যের বাড়ীতে,যাহা তিনি রক্ষণাবেক্ষন  করেন না,বিদ্যালয়ের জমির সিমানা নির্ধারণ না করে একে একে প্রায় লক্ষ টাকার গাছ নিজে বিত্রুী করে আতœসাৎ করেছেন,তিনি মনগড়া রেজুলেশন লিখে নিজে সই করেন,নিয়মিত স্কুলে যান না,ছুটি ছাড়া প্রায়ই বাইরে ঘোরা ফেরা করেন,সরকারি বরাদ্ধকৃত টাকা আতœসাৎ করবে তা কেউ জানবে না, জানতে চাইলে তিনি বলেন এটা আমার ইচ্ছা।উপজেলা শিক্ষা অফিস তাকে পরিবর্তনের জন্য বার বার মৌখিকভাবে জানাইলেও তার কোন পরিবর্তন হয় নাই,ইতি পূর্বে  উপজেলা শিক্ষা অফিসার জেলা শিক্ষা অফিসার  পরিদর্শনে এসে বিদ্যলয়টি বন্ধ পেযেছে ছাড়া লিখিত অভিযোগের কপিতে আরো একাধিক অভিযোগ রয়েছে স্কুলের ভারপ্রাপ্ত  প্রধান শিক্ষক মো.রুহুল আমিনের বিরুদ্ধে।
অভিযোগের বিষয়ে স্কুলের ভারপ্রাপ্ত  প্রধান শিক্ষক মো.রুহুল আমিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি  বলেন,আমি এবং দ্যিালয়ের কমিটি মিলে  সিমানার টি গাছ বিত্রুী করে বিদ্যলয়ের উন্নয়নের কাজে লাগিয়েছি,কিন্তুু তিনি উন্নয়নের কাজের কোন প্রমান এবং বিদ্যালয়ের রেজুলেশনে ধরনের বিষয় দেখাতে পারেননি। সরকারি বরাদ্ধকৃত টাকার বিষয় জানতে চাইলে তিনি একটি হিসাব দেখান কিন্তু সেখানে বিদ্যালয়ের সিমানা নির্ধারন করে এড়িয়া দেয়ার কথা থাকলেও পায় থেকে মাসেও তিনি সেটা দিতে পারেনি কিন্তু অর্থ নিয়ে নিয়েছেন  সরকারি বরাদ্ধকৃত স্কুলের অর্থ থেকে,তিনি বলেন সিমানার জন্য  বেড়া তৈরি করা আছে  সেটা এখানে এনে লাগীয়ে দেব, কিন্তু কোথায় বেড়া তা দেখাতে পারেনি ওই শিক্ষক। অভিযোগের অনন্য বিষয়েও সচ্ছতা দেখাতে পারেনি ভারপ্রাপ্ত  প্রধান শিক্ষক মো.রুহুল আমিন।
বিষয়ে উপজেলা সহকারি শিক্ষা কর্মকর্তা  হিমাদ্রী শেখর দেবনাথের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান,আমরা স্কুল কমিটির সভাপতির   লিখিত অভিযোগ পেয়েছি এবং সরোজমিন তদন্তে বেশ কিছু অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি। বিষয়ে অতি শিঘ্রই জেলা শিক্ষা কর্মকর্তার মাধ্যমে  ৯৯  নং  উঃপূর্বঃকৈবর্তখালি সঃ প্রাঃ বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত  প্রধান শিক্ষক মো.রুহুল আমিন এর  বিরুদ্ধে যথাযথ ব্যবস্থ্যা নেব।

Post a Comment

Post Bottom Ad

Pages