কিশোরিকে ধর্ষণের পর হত্যা,ঝালকাঠিতে সাবেকপুলিশ সদস্য ও ডাক্তারসহ ৬ জনের নামে মামলা। - অনলাইন দৈনিক সমবাদ,সত্য সংবাদ প্রকাশে ২৪ঘন্টা,True News publish the 24 hours "Online Daily Samobad"

শিরোনাম

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Thursday, March 23, 2017

কিশোরিকে ধর্ষণের পর হত্যা,ঝালকাঠিতে সাবেকপুলিশ সদস্য ও ডাক্তারসহ ৬ জনের নামে মামলা।


www.samobad.com :: সমবাদ ডট কম ॥

মো:খায়রুল ইসলাম পলাশ,নিজস্ব প্রতিবেদক:: ঝালকাঠি জেলা দায়রা জজ আদালতে কিশোরীকে ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগে অবসরপ্রাপ্ত এক পুলিশ সদস্যসহ নামে আদালতে মামলা (এমপি-৪০) দায়ের করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টার দিকে নিহত কিশোরীর পিতা দিন মজুর হিরণ হাওলাদার বাদী নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা দায়ের করেন
নিহত ওই কিশোরীর নাম কাজল (১২) মামলার বিবরণে জানাগেছে, কাজল তার নানীর সাথে সদর উপজেলার বালিঘোনা গ্রামের দুর্সম্পর্কের আত্মীয় অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আব্দুল মান্নান হাওলাদারের বাড়িতে বেড়াতে যায়। এসময় হিরণ হাওলাদারের অভাবী সংসারের কথা বলে কাজলকে গৃহকর্মী হিসেবে রেখে বিয়ে দেয়ার দায়িত্ব নেয়। মার্চ বিকেল টার দিকে আব্দুল মান্নান হাওলাদার, গফফার হাওলাদার, আনোয়ার হোসেন, ফেরদৌসী ওরফে মিনু কাজলে পিত্রালয়ে গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় রেখে যায়
এসময় তার যৌনাঙ্গ থেকে রক্ত ঝড়ছে এবং মুখমন্ডল, গলা নিতম্বে আঘাতের চিন্হ দেখা যায়। তখনও কাজল কোনমতে কথা বলতে পারে। সে তখন পিতাকে ধর্ষণের নির্মম কাহিনীর কথা জানায়। তাৎক্ষণিক ঝালকাঠির সীমান্ত এলাকা বানারীপাড়া থানায় নিয়ে গেলে ওসি সাজ্জাদ হোসেন পুলিশ দিয়ে কাজলকে স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে পাঠিয়ে দেয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় কথা বন্ধ হয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক বরিশাল শেরই বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয়ে (শেবাচিম) পাঠিয়ে দেন। শেবাচিমের কর্মরত চিকিৎসক জানান ধর্ষণের ফলে কিশোরীর অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হয়েছে এবং তাকে শারিরীকভাবেও নির্যাতন করা হয়েছে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১১ মার্চ ভোরে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করে
কাজলের খালা হালিমা বেগম জানান, পিতার অভাবী সংসারের জন্য কাজলকে মান্নান পুলিশের বাড়িতে কাজে দিয়েছিলাম। সে এমন কাজ করছে যে চিরতরে কাজল চলে গেছে
মামলার আইনজীবী আক্কাস সিকদার জানান, বানারিপাড়া ছলিয়াবাকপুর খাজুরবাড়ি আবাসন প্রকল্পের বাসিন্দা দিন মজুর হিরন হাওলাদার তার কন্যা কাজলকে গৃহকর্মী হিসেবে অবসরপ্রাপ্ত পুলিশ সদস্য আব্দুল মান্নান হাওলাদারের বাড়িতে কাজে দেন। মান্নান কাজলে বিভিন্ন সময় যৌন হয়রানি করতো। মার্চ নির্মমভাবে ধর্ষণ নির্যাতন করে। যার ফলে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হওয়ায় শেরই মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করে। এঘটনায় কাজলের পিতা হিরণ হাওলাদার বাদী হয়ে আদালতে অভিযোগ দিলে আদালত তা এপ্রিল শুনানীর দিন ধার্য্য করে

Post a Comment

Post Bottom Ad

Pages