রাজাপুরে বিয়ে করতে এসে বর ও ঘটক আটক! - অনলাইন দৈনিক সমবাদ,সত্য সংবাদ প্রকাশে ২৪ঘন্টা,True News publish the 24 hours "Online Daily Samobad"

শিরোনাম

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Thursday, February 23, 2017

রাজাপুরে বিয়ে করতে এসে বর ও ঘটক আটক!

www.samobad.com :: সমবাদ ডট কম ॥মো:খায়রুল ইসলাম পলাশ:

প্রতিনিধি:২২ফেব্রুয়ারী (বুধবার) দুপুর ১২:৩০ মিনিট। শতাধিক বরযাত্রী আপ্যায়নের জন্য প্রস্তুত কনে বাড়ী। যথাসময়ে বরযাত্রী হাজির। কিন্তু বিয়ের পিড়িতে বসা হলনা বড় মনজুর আলমের (২৪) বরযাত্রী আসার সাথে সাথে কনে পক্ষের কাছে খবর আসে বর মনজুর এর আগেও প্রায় ডজনখানেক বিয়ে করেছেন। এছাড়াও কনে পক্ষের কাছথেকে টাকা হাতিয়ে নিয়ে পরে স্ত্রীর আর খবর নেয় না মনজুর। এমন খবরে অচেতন হয়ে পড়েন কনে এবং বিয়ের সব আয়োজন পন্ড হয়েযায়।
ঘটনাটি ঘটেছে ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার দক্ষিন রাজাপুর (বলাই বাড়ী) এলাকায়। ঘটনায় বর মনজুর ঘটক হানিফকে আটক করেছে এলাকাবাসী। তাদেরকে স্থানীয় ইউপি সদস্য উপজেলা মহিলা ভাইস্ চেয়ারম্যান আফরোজা আক্তার লাইজুর সহযোগীতায় রাজাপুর থানায় ¯থান্তর করা হয়েছে। অবস্থা বেগতিক দেখে পালিয়েছে বরের সাথে আসা বাকীরা।
কনের ভাই আল আমিন জানায়, গত (২০ ফেব্রুয়ারী) সোমবার ঝালকাঠির ধানসিড়ি ইউনিয়নের বেরপাশা গ্রামের সোবাহান হাওলাদারের পুত্র মনজুর আলমের সাথে রাজাপুর উপজেলার বলাইবাড়ী এলাকার মৃত সোবাহান তালুকদারে কন্যা সাথী আক্তারের বিয়ে হয়। ঘটক হানিফের মাধ্যমে উপজেলার মঠবাড়ী ইউনিয়ন কাজী অফিসে একলাখ টাকা দেন মোহরে এই বিয়ে হয়। কিন্তু ঘটক মো. হানিফ বর মনজুরের অপকর্মের তথ্য গোপন করে এই বিবাহের আয়োজন করে বলেও অভিযোগ করেন কনের ভাই আল আমিন। তিনি আরো বলেন, এঘটনায়  আমার বোনের জীবনটাই অনিশ্চতার মধ্যে পড়েছে।
বর মনজুর আলম বরিশাল জজ আদালতের চতুর্থ শ্রেনীর কর্মচারী কনে সাথী আক্তার রাজাপুর ডিগ্রী কলেজের এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্রী।
মনজুরের একাধিক স্ত্রীর মধ্যে রাজাপুরের পারভিন বেগম(১৯) একজন। পারভিন উপজেলার বাইপাস এলাকার ইউনুস খানের মেয়ে। মনজুরকে আটক করা হয়েছে এমন খবর শুনে থানায় আসেন পারভিন। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, গত দেড় বছর আগে মনজুরের সাথে একলাখ টাকা দেনমোহরে আমার বিয়ে হয়। কিন্তু সে আমার কাছে বিভিন্ন সময় টাকা দাবি করত কিন্তু আমার পরিবার গরীব তাই তাকে টাকা দিতে পারিনি। সেজন্য মনজুর আমাকে প্রায়ই মারধর করত। সবশেষ গত আট দিন আগে টাকা দিতে না পাড়ায় মনজুর আমাকে মারধর করে চলে যায়। তারপর তার আর কোন খবর পাইনি। সে একজন খুব খারাপ লোক আমি তার উপযুক্ত বিচার চাই।
ধানসিড়ি ইউনিয়নের ইউপি সদস্য নূর হোসেন জানান, আমার কাছে বিভিন্ন সময় মনজুরের বিষয়ে বিভিন্ন অভিযোগ এসেছে। আমি কিছু বিষয়ের মিমাংসা করেছি কিন্তু মনজুরের কুকর্ম দিনদিন বেড়েই চলছে। সে বিভিন্ন এলাকায় বিয়ে করে শশুরবাড়ী থেকে যৌতুক নিয়ে বউয়ের আর কোন খবর নেয় না। আমি এমন -৬টি ঘটনা সম্পর্কে অবগত। কিন্তু এখন শুনছি সে এর আগে আরো ডজনখানেক বিয়ে করেছে।
বর মনজুর আলমের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার প্রথম বৌ মারা যাওয়ায় আমি দ্বিতীয় বিয়ে করি কিন্তু সেই বউ আমাকে ছেড়ে চলে যায়। আমি গত তিন মাস যাবত একা জীবন যাপন করছিলাম তাই ঘটক হানিফ ভাইকে বলে এই বিয়ের আয়োজন করেছি। এক ডজন বিয়ে সম্পর্কে জানতে চাইলে মনজুর বলেন, আমি এক ডজন বিয়ে করিনি এখন পুযর্ন্ত -৫টি করেছি। পারভিন সম্পর্কে জানতে চাইলে মনজুর কোন উত্তর দিতে পারে নি।
এবিষয়ে রাজাপুর থানা পরিদর্শক শেখ মুনীর উল গীয়াস বলেন, কনেপক্ষ থেকে লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। আটক মনজুরকে ঝালকাঠি আদালতে পাঠানো হয়েছে। 

Post a Comment

Post Bottom Ad

Pages