ঝালকাঠি সওজ নির্বাহীর বিরুদ্ধে লটারী ছাড়াই ৪৪ লাখ টাকার টেন্ডার ৫ বিএনপির নেতার মধ্যে বন্টন তৎপরতার অভিযোগ - অনলাইন দৈনিক সমবাদ,সত্য সংবাদ প্রকাশে ২৪ঘন্টা,True News publish the 24 hours "Online Daily Samobad"

Post Top Ad

Responsive Ads Here

Saturday, June 11, 2016

ঝালকাঠি সওজ নির্বাহীর বিরুদ্ধে লটারী ছাড়াই ৪৪ লাখ টাকার টেন্ডার ৫ বিএনপির নেতার মধ্যে বন্টন তৎপরতার অভিযোগ

www.samobad.com :: সমবাদ ডট কম,বার্তা ডেস্কঃ ॥  ঝালকাঠি প্রতিনিধি : ঝালকাঠি সড়ক ও জনপদ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী এ কে এম হামিদুর রহমান বিরুদ্ধে প্রায় চুয়াল্লিশ লাখ টাকার ঠিকাদারী কাজ বিনা লটারিতে তার পছন্দের চিহ্নিত বিএনপিপন্থি ঠিকাদারকে গোপনে বন্টন তৎপরতার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গত ১০ মে ঝালকাঠি সড়ক ও জনপদ বিভাগ ই-টেন্ডারিংয়ের মাধ্যমে পাঁচ গ্রুপের এ টেন্ডার আহবান করেছিলেন। মোটা অংকের কমিশন হাতিয়ে নিতে নির্বাহী প্রকৌশলী এ কে এম হামিদুর রহমান অতি গোপনে শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু সহ জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দের অজান্তে এ প্রচেষ্টা চালিয়েছে বলে অভিযোগে জানাগেছে।
      অভিযোগে জানাযায়, টেন্ডার আহবানের পর ৫৫/ই-জিপ এ গ্রুপে বিভিন্ন সড়কের পাশে গাছের চারা রোপনের এক লাখ ২৫০০০ টাকার কাজে ৪ জন ঠিকাদার, ৫৬/ই-জিপ এ গ্রুপে ইট, পাথর, সিলেট বালু, লোকাল বালু, জ্বালানী কাঠ এবং রং সরবারহ পঁচিশ লাখ টাকার কাজে ১১ জন, ৫২/ই-জিপ এ ড গ্রুপে নলছিটির পীর মোয়াজ্জেম সড়ক ও রাজাপুর মিরের হাট সড়ক মেরামতের পাঁচ লাখ ৫০ হাজার টাকার কাজে ২২ জন, ৫৩/ই-জিপ এ গ্রুপে ষাটপাকিয়া সড়ক মেরামরেতর ছয় লাখ টাকার কাজে ২১ জন এবং ৫৩/ই-জিপ এ গ্রুপে গুরুধম সেতু মেরামতের ছয় লাখ টাকার কাজে ২২ জন ঠিকাদার গত ৩১ মে দরপত্র দাখিল করে।
    এর মধ্যে একটি গ্রুপের টেন্ডার ওপেন করেন বরিশালের সুপারেন্টেন্ড কার্যালয়ে ও বাকি চারটি গ্রুপের টেন্ডার ঝালকাঠিতে ওপেন করা হয়। নিয়মানুযায়ী সিএস তৈরির পর লটারীর মাধ্যমে ঠিকাদার নির্বাচনের নিয়ম থাকলেও নির্বাহী প্রকৌশলী তার পছন্দের ঠিকাদারদের কাছ থেকে নগদ আর্থিক সুবিধা গ্রহণ করে লটারী ছাড়াই কাজ বন্টনের সব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছেন।
    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক ঠিকাদার জানান, দুর্নীতির মাধ্যমে যেসব ঠিকাদারকে কাজ দেয়ার চেস্টা চলছে সেই ঠিকাদাররা হলেন সাবেক প্রতিমন্ত্রী শাজাহান ওমরের ডানহাত মির জিয়াউদ্দিন মিজানের সহযোগী জেলা যুবদলের নেতা  নারায়ন চন্দ্র ব্রহ্ম ও সোহেল হোসেন মনু, জেলা বিএনপির সাবেক নেতা জয়ন্ত কুমার, বিএনপির নেতা জাহাঙ্গীর হোসেন ও দরবেশ বাবুল।
   তবে বিএনপির চিহ্নিত ঠিকাদারদের কাজ দিয়ে নির্বাহী প্রকৌশলী সহ অফিস কর্মকর্তা-কর্মচারীরা মোটা অংকের অর্থ হাতিয়ে নিতে পারে এবং রাজনৈতিক কোন চাপ সৃষ্টি করতে পারেনা বিবেচনায় অফিসের সহযোগীতায় একাজ বন্টনের প্রচেষ্টা চালানো হচ্ছে বলে জানাগেছে। আর সঠিক লটারী বঞ্চিত সাধারণ ঠিকাদাররা ভবিষ্যত ক্ষতির আশংকায় প্রকাশ্যে নির্বাহী প্রকৌশলীর এ অনিয়মের প্রতিবাদ করতে সাহস পারছেন না।
      এ ব্যাপারে নির্বাহী প্রকৌশলী এ কে এম হামিদুর রহমান জানান, ই-জিপি টেন্টারে ঝালকাঠির বাইরে থেকেও ঠিকাদাররা অংশ নিতে পারবেন তাই এতে কোন দুর্নীতির সুযোগ নেই। সবকিছু সুপারেন্টেন্ড স্যারের কাছে তাই আমি ইচ্ছে করলেই কাউকে এ কাজ দিতে পারিনা। তিনি বলেন, যারা কাজ পাচ্ছেনা, তারাই হয়তো এ ধরণের মিথ্যা ও ভিত্তিহীন অভিযোগ করছে।

No comments:

Post Bottom Ad

Pages